বুধবার, ০৪ অগাস্ট ২০২১, ০৯:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের উপন্যাস পাঠানুভূতি

আকরামা আরিফ ইষা
  • Update Time : শুক্রবার, ৯ জুলাই, ২০২১
  • ৬১ Time View

আকরামা আরিফ ইষা

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় (১৫ সেপ্টেম্বর ১৮৭৬ – ১৬ জানুয়ারি ১৯৩৮) ছিলেন একজন বাঙালি লেখক, ঔপন্যাসিক, ও গল্পাকার। তিনি দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় এবং বাংলা ভাষার সবচেয়ে জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক।

পথের দাবী বিংশ শতাব্দীর প্রথমভাগের অন্যতম বাঙ্গালী কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কর্তৃক বিরচিত একটি জনপ্রিয় উপন্যাস। এ উপন্যাসটি ১৯২৬ খ্রিস্টাব্দের আগস্ট মাসে সর্বপ্রথম প্রকাশিত হয়েছিল। এই উপন্যাস শুরু হয়েছে অপূর্ব নামক চরিত্রের রেঙ্গুন গমন দিয়ে, শুরুটা তাকে দিয়ে হলেও উপন্যাসের মূল চরিত্র সে ছিলেন না; সব্যসাচী ব্যক্তি যাকে সবাই ‘ডাক্তার’ নামে চিনেন, তাকে ঘিরেই উপন্যাস এগিয়ে গিয়েছে। নারী চরিত্র গুলোর মধ্যে উল্লেখ্য যোগ্য ছিল ‘ভারতী’ আর ‘সুমিত্রা’। ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে তাঁদের দল অর্থাৎ সব্যসাচী ‘ডাক্তার’ এর নেতৃত্বে একটি সংগঠন কাজ করতো , অপূর্ব না চাইতেই সে সংগঠনের সদস্য হয়ে যায় তারপরই সে সংগঠনের উত্থান-পতন শুরু হয়।

সব্যসাচী কে ছিলেন কি করতেন সেসব মুখে বলে বোঝানো সম্ভব না, সুমিত্রা ছিলেন পাহাড়ের মতো কঠিন আর ভারতী ছিলেন পানির মতো সরল, অপর দিকে অপূর্ব ছিলেন ভীতু প্রকৃতির। তারা দেশের স্বাধীনতা অর্জনে মানুষদের সচেতন করে তুলার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করতেন, সেই মানুষরাই অনেক সময় তাঁদের বিরুদ্ধে চলে গেছে আর ক্ষমতার লোকরা তাঁদের দেশদ্রোহী বলে ঘোষণা করে দিয়েছে। ছোট ছোট ঘটনা জুড়েই চলতে থাকে উপন্যাসটি।
আর মূল হলো দুটো সম্পর্ক,, (ডাক্তার + সুমিত্রা,অপূর্ব+ভারতী)।

তাদের প্রণয় গুলো তাদের মধ্যেই রয়ে গেলো,, পরিনয় পেলো না। কেউ কখনো প্রকাশই করলো না,,ডাক্তার জানলো না সুমিত্রা তাকে ভালোবাসে, সুমিত্রাও না। তেমনি অপুর্বও জানলো না ভারতী তাকে ভালোবাসে, ভারতীও না। তাদের সম্পর্ক গুলো এভাবেই থেকে গেলো।

ভেবেছিলাম শেষ অবদি মনে হয় পরিনয় পাবে।
নাহ্ তা আর হলো কই!!!

অপর্বর রেঙ্গুন প্রবেশের মাধ্যমে যেমন শুরু হয়, তেমনি ডাক্তারের রেঙ্গুন ত্যাগ এর মাধ্যমে উপন্যাসের সমাপ্তি হলো।

উপন্যাসে লেখক বোঝাতে চেয়েছেন দেশ প্রাণের চেয়েও প্রিয় কারণ দেশ স্বাধীন করার জন্য জীবন বাজী রাখলে আগামী প্রজন্ম স্বাধীনতার স্বাদ নিয়ে মাথা উচু করে বেঁচে থাকবে আর স্বাধীনতা বলতে শুধুমাত্র দেশ স্বাধীন করা না, দেশ স্বাধীন হওয়ার পরও তা ধরে রাখা এবং ধর্মের চেয়েও মানুষ বড়।

বই : পথের দাবী
লেখক : শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
মোট পৃষ্ঠা : ২৪০
ধরণ: উপন্যাস

রিভিউ লেখক: আকরামা আরিফ ইষা
শিক্ষার্থী,বাংলা বিভাগ
গুরুদয়াল সরকারি কলেজ,কিশোরগঞ্জ।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© ২০১৬ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | এই ওয়েবসাইটের কোনো কনটেন্ট অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
কারিগরি সহযোগিতায়: Ashraf Ali Sohan
www.ashrafalisohan.com