ঢাকাWednesday , 20 October 2021
  • অন্যান্য
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইটি বিশ্ব
  4. আজকের পত্রিকা
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া সংবাদ
  7. ইউনিয়ন নির্বাচন
  8. ইতিহাস
  9. ইসলাম ও জীবন
  10. ঐতিহ্য
  11. কবিতা
  12. করোনা
  13. কৃতি সন্তান
  14. কৃষি সংবাদ
  15. খেলা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভারতীয় চ্যানেল বন্ধ হলে বাঁচবে বাংলাদেশের সংস্কৃতি

Link Copied!

জিয়াউল হক বাতেন

বাংলাদেশে ভারতীয় কিছু টিভি চ্যানেল এমনভাবে মানুষকে আসক্ত করছে যা বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে দারুণভাবে বিষাক্ত করছে। প্রবাহমান বাংলার ঐতহ্যবাহী সংস্কৃতিতে যেভাবে বিদেশী বিশেষ করে ভারতীয় সংস্কৃতির মোড়কে বাস্তবতা বিবর্জিত কাল্পনিক ও মূল্যবোধের অবক্ষয় সৃষ্টিকারী সংস্কৃতির নগ্ন আগ্রাসন চালানো হচ্ছে তাতে আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতি হারিয়ে যেতে খুব বেশি সময় বাকী আছে বলে মনে হয়না । যার মূলে রয়েছে বিদেশী চ্যানেল সম্প্রচার। এইসব চ্যানেলগুলো এই ভাবে চলতে থাকলে বিশেষ করে বাংলাদেশের নারী সমাজকে ধ্বংসের দিককে নিয়ে যাবে, যার সমাধান খুঁজে বের করা কঠিন হয়ে যাবে।

ইত:মধ্যে এইসব অপসংস্কৃতির প্রভাব বাংলাদেশে পরতে শুরু করছে। তবে ভারতীয় সব চ্যানেলকে আমি দায়ী করছি না, বিশেষ করে স্টার জলসা, জি বাংলা, খালাস বাংলা উল্লেখযোগ্য। এইসব চ্যানেলে যেসব অনুষ্ঠান প্রচার করা হয়, সেগুলো মানুষের জীবনে ক্ষতি ছাড়া কোন উপকার হয় না। এইসব চ্যানেলে যে সব সিরিয়াল নাটক প্রাচার করা হয়, নাটকগুলো নিম্নে ১০০০ থেকে ১৫০০ পর্ব হয়। ১ থেকে ২ বছর সময় ধরে সিরিয়াল নাটক গুলো প্রচার করা হয়ে থাকে। নাটক গুলোতে দেখা যায় শাশুরী তার ছেলে বউয়ের উপর নির্যাতন করছে, বউ শাশুরী উপর নির্যাতন করছে, ননদ ভাবীর উপর ভাবী ননদের উপর নির্যাতন করছে। এসব নির্যাতনের চরিত্রগুলো বছরের পর বছর চলতে থাকে, এতে করে কেউ অপরাধীর বিচার দেখতে পারে না। আমরা যদি কোন সিনেমা দেখি তাহলে অপরাধী চরিত্রে যারা অভিনয় করে তাদের শাস্তি ২ থেকে ৩ ঘন্টার মধ্যে দেখতে পারি। ভারতীয় এসব নাটকগুলতে মানুষ অপরাধী চরিত্রের বিচার না দেখতে পেয়ে, তাদের জীবনে ও সেইভাবে নাটকের অপরাধীদের চরিত্রের মত গঠন করতে শুরু করছে। যারা এই সব নাটক প্রতিদিন নিয়ামিত দেখছে , বাংলাদেশের সে সব নারী সমাজের ভবিষ্যত আজ হুমকির মুখে। এছাড়াও চ্যানেলগুলোতে পরক্ষীয়া প্রেমকে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে। যার কারণে বাংলাদেশে বিবাহ বিচ্ছেদ বেড়ে গেছে। কোর্টে পারিবারিক মামলার ঝট হচ্ছে প্রতিনিয়ত । স্বামী- স্ত্রীর ভালবাসায় ধরছে ফাটল।

সিরিয়াল নাটকগুলোতে পুরুষের চরিত্রগুলোকে করা হচ্ছে সাদামাটা, নারীরা অপরাধ করলেও তারা দেখে কিছু বলতে পারছে না। নারীরা এমন ভাবে সাজগোজ ও বিলাসিতা করে যা দেখে সাধারণ ঘরের মেয়েরা ও উচ্চ বিলাসিতা করতে যেয়ে অনেক সময় বিপদে পা বাড়াচ্ছে যা খুবই ভয়ংকর। এই চ্যানেলগুলোর কাজ হচ্ছে একটির পর একটি নাটক প্রচার করা যাতে কেউ চ্যানেল পরিবর্তন করতে না পারে। বাংলাদেশের এমন গুরুত্বপূর্ণ সময়ে নাটক শুরু হয় যে সময়ে ছাত্র/ছাত্রীরা পড়াশুনার উপযুক্ত সময়। পড়াশুনা হচ্ছে বাধাগস্ত যা ছাত্রদের জীবন আজ অন্ধকারে। পরিবারে ছেলে মেয়ে মা বাবা স্বামী স্ত্রীদের মধ্যে টিভির রিমোট নিয়ে ঝগড়া তো লেগেই থাকে।পুরুষরা বাইরে থেকে কাজ করে আসলে তার পরিবারের ছেলে মেয়ে স্ত্রী কথাই বলে না। দেখা যায় যে,ছেলে মেয়েরা তার বাবা বাইরে থেকে আসলে বুকে জড়িয়ে ধরত । আজ এইসব নাটকের জন্য বাবা ছেলে মেয়েদের ভালবাসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। হিন্দু ধর্মের রীতিনীতি আচার অনুষ্ঠাকে সব সময় নাটকে প্রাধান্য দেওয়া হয় যার কারণে ইসলাম ধর্মের মানুষেরা হিন্দু রীতিনীতির দিকে ধাবিত হচ্ছে। এতে পারিবারিক কলহের সৃষ্টি হচ্ছে। বাংলাদেশের নাটক অনেক সুন্দর কিন্তু বাংলাদেশের বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলো তাদের প্রচার কৌশল ভালো না থাকায় মানুষ দেখতে চাই না একবারে এত বিজ্ঞাপন প্রচার করে থাকে যা মানুষের বিরক্তির কারণ হয়ে দাড়িয়েছে। একটু কম সময় বিজ্ঞাপন প্রচার করে অনেক বার প্রচার করলে মানুষ নাটক দেখার সুযোগ পেতো।

বর্তমানে বাংলাদেশের নাটক গুলোতে মানুষকে জোরে হাসাতে চেষ্টা করছে, যা আমরা দেখতাম ঈদের কমিডিয়ান নাটক গুলোতে। এগুলোও মানুষের অপছন্দের কারণ হয়ে দাড়িয়েছে। আমরা সবাই বিটিভির অনুষ্ঠান মালা ভুলেই গিয়েছি । অনেকে বলে থাকে সরকারি টিভি দেখে কোন লাভ নাই, সেই টিভিতে শুধু সরকারি গুণগান গায়। আমরা ভালো করে যদি লক্ষ্য করি, তাহলে শিক্ষামুলক অনুষ্ঠানের তালিকায় বিটিভি সকল টিভির উপরে। বিশেষ করে শিশুদের বিটিভির অনুষ্ঠান দেখানো প্রত্যেক অভিভাবকের দরকার। বিটিভির কোন তুলনাই হয় না। আমরা জানি ভারতে বাংলাদেশর চ্যানেল গুলো দীর্ঘদিন ধরে প্রচার বন্ধ রয়েছে। আর বাংলাদেশে ভারতের চ্যানেল প্রচার হচ্ছে। শুধু প্রচারেই হচ্ছে না বাংলাদেশের নামীদামী কোম্পানি গুলো বিজ্ঞাপন প্রচার করে কোটি কোটি টাকা নিয়ে যাচ্ছে,এমকি বিজ্ঞাপন প্রচারে দেখা যায় ভারতীয় তারকা এবং বিজ্ঞাপন নির্মান কাজ ভারতীয়রাই করছে। এতে করে একদিকে বাংলাদেশ সরকার রাজস্ব থেকে হচ্ছে বঞ্চিত। বেসরকারি চ্যানেলগুলো আজ হুমকির মুখে অন্যদিকে বাংলাদেশের সংস্কৃতি আজ কলংকিত।

দেরিতে হলেও বাংলাদেশ সরকারের বিষয়টা নজরে এসেছে। বাংলাদেশের সুশীল সমাজ ও সচেতন মানুষ মনে করেন, সরকার এইসব চ্যানেল বন্ধ করে বাংলাদেশের সংস্কিৃতি বাঁচিয়ে রাখবে।

সংগঠক, রাজনীতিবীদ ও রাষ্ট্রচিন্তক