পাকুন্দিয়ায় জমি সংক্রান্ত জের ধরে দুইপক্ষের সংঘর্ষে আহত  সাত

 

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার পাটুয়াভাঙ্গা ইউনিয়নের পুলেরঘাট(আর্দশ পাড়া) জমি সংক্রান্ত জের ধরে আহত সাত ।

পুলেরঘাট গচিয়াহাটা রোডটের দক্ষিণ পাশে আর্দশরপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে একটি প্রয়াত পুকুর কে কেন্দ্র করে বেশ দিন ধরেই বিভিন্ন মারামারি দাঙাহাঙ্গামা চলছে। তারই জের ধরে গত ০৫/০৩ /২০২১ ইং রোজ শুক্রবার আনুমানিক রাত ১১ঃ০০ ঘটিকায় প্রতিপক্ষ নবী হোসেন (৩৫)- পিতা আলাউদ্দীন, আলমগীর (৩২) -পিতা বাবুল মিয়া, আবু তাহের (৪৬)-পিতা মৃত আঃ লতিফ, খুর্শিদ আলম (৫০)-পিতা মৃত আঃ সোবান , ইব্রাহিম (৩০)- পিতা আঃ হাসিম, রতন মিয়া (৫০) পিতা-মৃত ফালু মিয়া, শাহ আলম (শাহপরান -৩০) পিতা -সাহাব উদ্দীন, কাইয়ুম সহ আরো প্রায় বিশ -ত্রিশ জন অন্ধাকরে আঃ রহিমের পরিবারের ওপর আক্রমণ করেন এত গুরুতর আহত হয় মতিউর রহমান (৩৮)পিতা -আঃ মালেক, জেসমিন (৩২) স্বামী -আঃ সাহিদ, মরম আলী (৩৫) পিতা- আঃ রাশিদ, মারফত আলী পিতা – আঃ মালেক , নাজমা(৩২) আক্তার স্বামী-মতিউর রহমান। তার পরবর্তীতে আঃ রহিম বাদী হয়ে আক্রমনকারীদের বিরুদ্বে পাকুন্দিয়া থানায় একটি মামলা দায়েল করে।

ঘটনার পর দিন ০৬/০৩/২০২১রোজ শনিবার আনুমানিক সকাল ১০ঃ০০ ঘটিকায় প্রতিপক্ষ আঃ রহিমের বাড়িতে আবার হানা দেয় প্রতিপক্ষ এবং বাড়ি- ঘর, দোকান মোটর সাইকেল সহ বিভিন্ন কিছু ভাঙচুর করার সময় বাড়িতে থাকা অষ্টম শ্রেনীতে পড়ুয়া খুকো মনি এতে বাঁধা দিলে তার হাতে আঘাত করে এবং বাড়িতে থাকা তিনটি গরু নিয়ে যায় আক্রমন কারীরা।
তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ খবর পেলে ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

স্হানীয় সূত্রে জানা যায় প্রয়াত পুকুরটি নিয়ে এ সমস্যা। অনেক দিন ধরেই চলছে আঘাত পাল্টা আঘাকত অনেক রকম শালিশ করেও সমাধান ঘটেনি এখন তার রূপ আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে।

ঘটনা অনুসন্ধান করার সময় দায়িত্বরত অফিসার এ এসআই জাকির হোসন “পাকুন্দিয়া প্রতিদিন “কে জানান যে এ সমস্যা অনেক সময় ধরে চলছে অনেকেই সমাধানের লক্ষে এগিয়ে আসতে চাইলে কোনো পক্ষই তাদের কে মানতে নারাজ তিনি বলেন মামলায় জড়িত থাকা সকল অপরাধীদেরকে যত দ্রুত সম্ভব গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে। পুলিশি সূত্রে আরো জানা যায় এ মামলাটাই শেষ নয় বিগত সময়ে নবী হোসেন বাদী হয়ে আরেকটি মামলা দায়েল করা হয়েছে যাতে প্রধান আসামী করা হয় আঃ রহিমের সন্তান নওশাদ ও তার পরিবারের লোকজন কে।

আঃ রহিমের স্ত্রী নাসরীন বেগম এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে সুষ্ঠ বিচার দাবি করছে প্রশাসনের কাছে।

Nazmul

বার্তা সম্পাদক 01795995615

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *