মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৬:১৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
টাকার অভাবে দু’টো চোখ হারাতে বসেছে বুরুদিয়ার রাসেল
Update : শুক্রবার, ১৩ জানুয়ারি, ২০২৩, ৩:১৮ অপরাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট: দুচোখের আলো নিয়েই জন্মেছিল রাসেল মিয়া। সবকিছুই দেখতে পেতো ঠিকটাক। ১১ বছর বয়সে হঠাৎ ডান চোখে ঝাপসা দেখতে শুরু করে সে। পরে আস্তে আস্তে নিভে যায় ডান চোখের জ্যােতি। গত ছয় মাস ধরে বাম চোখের সমস্যা দেখা দেয় রাসেলের। ক্রমেই নিভে যাচ্ছে তার বাম চোখের আলো। নিজের চিকিৎসার জন্য গত পাঁচ মাস ধরে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও চিকিৎসার জন্য অর্থ না পেয়ে হতাশ রাসেল। পরিবারের উপার্জনক্ষম একমাত্র সদস্য হিসেবে বাবাও অসুস্থ । ডাক্তার বলেছে দ্রুত সময়ে মধ্যে চিকিৎসা করা না গেলে রাসেল একেবারে দৃষ্টিহীন হয়ে যাবে।

১৬বছর বয়সী রাসেল কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার বুরুদিয়া ইউনিয়নের কাহেতারদিয়া গ্রামের মানিক মিয়ার বড় ছেলে।

রাসেলে বাবা মানিক মিয়ার সাথে কথা বলে জানা যায়,তার বড় সন্তান রাসেলের বয়স যখন ১১বছর তখন থেকে তার ডান চোখের সমস্যা শুরু হয়। প্রথমে ঝাপসা দেখে সে। কিছু টাকা দিয়ে ডাক্তার দেখান তিনি। পরে আর টাকার জন্য তার চোখের চিকিৎসা করাতে পারেননি। তাই ডান চোখ নষ্ট হয়েছে যায়। এখন গত ছয় মাস ধরে রাসেলের বাম চোখে ঝাপসা দেখা ও ব্যাথা শুরু হয়। নিজের চিকিৎসার চালিয়ে যাওয়ার জন্যে সে স্থানীয় মাঠখোলা বাজারে একটি খাবার হোটেলে শ্রমিক হিসেবে কাজ করতো। চোখের সমস্যা জন্য এখন তার কাজ করাও বন্ধ হয়ে গেছে। কিছু টাকা জোগাড় করে ঢাকা ইস্পাহানি হাসপাতালে ডাক্তার দেখানো হয়। ডাক্তার কিছু পরীক্ষা দেয়। কিন্তু টাকার জন্য এখনও পরীক্ষা করতে পারেনি। এছাড়াও টাকার জন্য রাসেলের পড়ালেখাও বন্ধ হয়ে গেছে।

মানিক মিয়া আরও জানান,আমি অসুস্থ মানুষ কাজ-কাম নিয়মিত করতে পারি না। এখন রাসেলেই পরিবারের হালধরেছে। কিন্তু রাসেল যদি অন্ধ হয়ে যায় তাহলে আমাদের খুবই বিপদে পড়তে হবে। চিকিৎসার টাকা পাওয়া না গেলে আমার ছেলে দৃষ্টিহীন হয়ে যাবে। আপনারা আমার ছেলে রাসেলকে বাঁচান।

স্থানীয়ভাবে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রাথমিকভাবে তার চোখের চিকিৎসার জন্য ৫০ হাজার টাকার প্রয়োজন। ইতোমধ্যে তার জন্য চিকিৎসার খরচ জোগাড় করতে মাঠে নেমেছে পাকুন্দিয়া উপজেলা সবচেয়ে বড় অনলাইন প্লাটফর্ম ‘ভয়েস অব পাকুন্দিয়া”

উপজেলাভিত্তিক অনলাইন প্লাটফর্ম ভয়েস অব পাকুন্দিয়া’র এস এম রায়হান জানান,রাসেল আমাদের সাথে যোগাযোগ করলে আমরা তার চিকিৎসাপত্র দেখি। চিকিৎসাপত্রের ছবি তুলে আমাদের পরিচিত চোখের ডাক্তারদের কাছে পাঠাই। ডাক্তার সব দেখে বলেন, প্রাথমিকভাবে ৫০ হাজার টাকা হলে রাসেলের বাম চোখের সমস্যা দূর হবে। আমরা সেই অর্থ জোগাড় করতে রাসেলের পরিবারের সাথে সমন্বয় করে কাজ করছি। সমাজের বিত্তবান মানুষেরা এগিয়ে এলে রাসেলের চিকিৎসা দ্রুতই শুরু হবে আশা করছি।

যোগাযোগ ও সাহায্য পাঠাতে পারেন
বিকাশঃ 01820524040 নগদঃ 01711984276
এস এম রায়হান ( এডমিন ভয়েস অব পাকুন্দিয়া)
01714334888

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
আমাদের ফেইসবুক পেইজ