শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ১২:০২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
গরু চুরির অপরাধে হোসেনপুরের কাউন্সিলরসহ গ্রেফতার- ৩
Update : মঙ্গলবার, ২৫ জুলাই, ২০২৩, ৭:৩১ অপরাহ্ণ

স্টাফ রিপোর্টার : কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আবুল হোসেন ফারুক (৪৭) দীর্ঘদিন ধরে একটি গরু চোর চক্রের নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন। চুরি করে আনা ৪টি গরু বিক্রি করতে গিয়ে সোমবার (২৪ জুলাই) চক্রের এক সদস্য ধরা পড়ার পর বেরিয়ে আসে গরু চোর চক্রটির ব্যাপারে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য।

সেই তথ্যের ভিত্তিতে রাতে গ্রেপ্তার করা হয় কাউন্সিলর আবুল হোসেন ফারুককে। পরে তার দেয়া তথ্যে রাতেই গ্রেপ্তার করা হয় চক্রের আরো এক সদস্যকে। কাউন্সিলর আবুল হোসেন ফারুক পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাইছমা গ্রামের মৃত ছফির উদ্দিনের ছেলে।

গ্রেপ্তার হওয়া তার দুই সহযোগী হচ্ছে, মো. সাইফুল ইসলাম (৪৩) ও ওমর ফারুক (৩৮)। তাদের মধ্যে মো. সাইফুল ইসলাম হোসেনপুর উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের মাধখলা গ্রামের মৃত শহীদ উদ্দিনের ছেলে এবং ওমর ফারুক একই উপজেলার জিনারী ইউনিয়নের চর কাটিহারী গ্রামের আমান আলী ওরফে ইমান আলীর ছেলে।

হোসেনপুর থানার এসআই সুশান্ত সরকার জানান, সোমবার (২৪ জুলাই) দুপুরে মাধখলা গ্রামের সাইফুল ইসলাম চোরাইকৃত চারটি গরু বিক্রির উদ্দেশ্যে স্থানীয় জগদল বাজারে নিয়ে যাওয়ার পথে স্থানীয়দের সন্দেহ হলে সাইফুলকে এলাকাবাসী ধরে গণপিটুনি দিয়ে বৈদ্যুতিক খুঁটির সাথে বেঁধে রাখে।

জনতার পিটুনিতে সে জানায়, হোসেনপুর পৌরসভার কাউন্সিলর আবুল হোসেন ফারুক গরুগুলো সাইফুলকে বিক্রি করার জন্য দিয়েছেন। এ সময় জনতা পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে চোরাইকৃত চারটি গরুসহ সাইফুলকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ বেরিয়ে আসে, গরু চুরির মূল হোতা কাউন্সিলর আবুল হোসেন ফারুক।

পরে সাইফুলের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী কাউন্সিলর ফারুককে সোমবার (২৪ জুলাই) রাতে তার বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। কাউন্সিলর আবুল হোসেন ফারুক পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে গরু চুরির দায় স্বীকার করে।

কাউন্সিলর আবুল হোসেন ফারুকের স্বীকারোক্তিতে বেরিয়ে আসে, কাউন্সিলর ফারুক চর কাটিহারী গ্রামের ওমর ফারুকের মাধ্যমে দীর্ঘদিন যাবৎ এভাবে গরু চুরি করিয়ে বিভিন্ন স্থানে রেখে বিক্রি করে আসছিলেন। কাউন্সিলর ফারুকের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ওই রাতেই পুলিশ চর কাটিহারী গ্রামের ওমর ফারুককে গ্রেপ্তার করে।

হোসেনপুর থানার ওসি আসাদুজ্জামান টিটু বলেন, চোর চক্রের অন্যদের অচিরেই গ্রেপ্তার করা যাবে বলে আশা করছি। মঙ্গলবার (২৫ জুলাই) দুপুরে কাউন্সিলরসহ তিন আসামিকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

পাপ্র/সুআআ

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
আমাদের ফেইসবুক পেইজ